রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে নেপালি শিক্ষার্থী আটকসিলেটের আতিয়া মহলে আছে নব্য জেএমবির অন্যতম নেতা রাজশাহীর জঙ্গি মুসা!রাজশাহীতে যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হচ্ছে স্বাধীনতা দিবসকাঙালিভোজে আ. লীগের সংঘর্ষ, ছাত্রলীগকর্মী নিহতরাজশাহীর চারঘাটে ঝুলন্ত লাশ উদ্ধারবিভিন্ন স্থানে আত্মঘাতি হামলা ।। রাজশাহীতে নিরাপত্তা জোরদার ৮৫টা বিয়ে করেছি, একঘেয়ে লাগে না : মনামী ঘোষরাজশাহী কলেজে মসজিদের ইমামের সঙ্গে ছাত্রলীগের হাতাহাতিভয়ঙ্কর গণহত্যা, ২৫ মার্চের অপারেশন সার্চ লাইট ।। রাজশাহীর ইতিহাসে আজও নিখোঁজ ১১১৩ জেলায় কালবৈশাখী ঝড়ের হুঁশিয়ারিরাজশাহীর মোহনপুরে কয়েকশ মানুষের সেচ্ছাশ্রম, আড়াই কিলোমিটার রাস্তা সংস্কাররাজশাহীতে সন্তানদের নিষ্ঠুরতা ।। এক মুঠো ভাতের জন্য রোগী সেজে হাসপাতালে বৃদ্ধ!নাটোরে চার দোকান ভস্মীভূত৩ দিনের ছুটি, ঘরমুখো মানুষ ।। ঢাকা-রাজশাহী-চাঁপাই মহাসড়কে চলছে গাড়ি থেমে থেমেরাজশাহীর ৫০ মুক্তিযোদ্ধা পেলেন আর্থিক সহায়তা
২৮ মার্চ, ২০১৭
        

জয়পুরহাটে পায়ে লিখেই স্বপ্ন ছোঁবে বিউটি

প্রকাশঃ ০৮ ফেব্রুয়ারী, ২০১৭

শারীরিক প্রতিবন্ধকতা কোন বাধা নয় এমনটিই প্রমাণ করল জয়পুরহাট জেলার ক্ষেতলাল উপজেলার শিবপুর গ্রামের অদম্য মেধাবী প্রতিবন্ধী বিউটি আকতার।

চলতি বছর উপজেলার আকলাশ শ্যামপুর শিবপুর বিদ্যালয় থেকে তিনি ক্ষেতলাল পাইলট বালিকা উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় কেন্দ্রে পা দিয়ে লিখে এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছেন। ইতিপূর্বে বিউটি আকতার পা দিয়ে লিখে প্রাথমিক শিক্ষা সমপানী এবং নিম্ন মাধ্যমিক পরীক্ষায় অংশ নিয়ে প্রতিটি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়ে বৃত্তি লাভ করেছে। তার এ সাফল্য ক্ষেতলাল উপজেলা সহ জয়পুরহাটবাসীকে তাক লাগিয়ে দিয়েছিল।

বিউটি আকতার উপজেলার শিবপুর গ্রামের দরিদ্র বায়েজীদ হোসেনের কন্যা। বায়েজীদ হোসেনের অভাবী সংসারে দুই সন্তানের মধ্যে বিউটি আকতার কনিষ্ঠ। বড় ছেলে রহমান নিজ প্রচেষ্টায় স্নাতক পাশ করে বগুড়ায় একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে সেলস ম্যান হিসাবে কাজ করে। সকল প্রতিকূলতাকে উপেক্ষা করে লেখা পড়ার প্রতি অদম্য ইচ্ছা শক্তি থেকে বিউটি আকতার তার কাঙ্খিত স্বপ্ন পূরণে এগিয়ে চলেছে। পড়া লেখা শেষ করে বিউটি আকতার আদর্শ শিক্ষক হতে চান।

এ ব্যাপারে বিউটি আকতার অত্যন্ত বলিষ্ঠ কন্ঠে সংবাদ কর্মীদের জানান, ইচ্ছা থাকলে একজন মানুষ অনেক কিছু করতে পারে। এ পথ চলায় আপনাদের সহযোগিতা এবং দেশবাসীর দোয়া আমার কাম্য।

এ ব্যাপারে বিউটি আকতারের বিদ্যালয়ের শ্রেণি শিক্ষক একরামুল ইসলাম (উজ্জল) জানান, তার মধ্যে লেখা পড়ার প্রতি প্রবল ইচ্ছা শক্তি লক্ষ্য করেছি। নিয়মিত ক্লাসে উপস্থিত থাকত এবং সে নিজেকে কখনো প্রতিবন্ধী মনে করে না। বিদ্যালয়ের সহশিক্ষামূলক সকল কার্যক্রমে তার স্বতঃস্ফুর্ত অংশ গ্রহন ছিল। আমি আশা করি বিউটি এবারও এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়ে সাফল্যের সাথে উত্তীর্ণ হবে।

ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক আকাম উদ্দীন আকন্দ জানান, বিউটি আকতার অত্যন্ত সাবলীল ও সুন্দর আচণের অধিকারী। দোয়া করি তার সাফল্যের ধারা অব্যাহত থাকুক। সেই সঙ্গে তার উচ্চ শিক্ষার পথকে সুগম করার জন্য কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান শিক্ষা সহায়তা করলে তার পরিবার উপকৃত হবে।